মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি

প্রিয় পাঠক আপনি কি মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি জানতে চাচ্ছেন। কেননা আজকের আর্টিকেলটিতে মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি এসব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। তাই মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি জানতে আর্টিকেলটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত মনোযোগ সহকারে পড়ুন।
মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি
নিচে আপনাদের জন্য মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি এবং মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গের নাম বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। তাহলে চলুন দেরি না করে মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি সেই সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

পেজ সূচিপত্রঃ মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি

ভূমিকাঃ মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি

মানুষের দেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নামটি হল ত্বক। যদি দেহের পুরো চামড়া কে পরিমাপ করা হয় তাহলে এর পরিমাণ হবে প্রায় ২০ বর্গফুট। ত্বকের আবার তিনটি ভাগ করা হয়েছে। এপিডার্মিস, ডারমিস, হাইফডার্মিস। ত্বক আমাদের দেহের সুরক্ষা দেয় এবং এটি দেহকে ছাতার মতো বাইরের প্রতিকূল অবস্থা থেকে রক্ষা করে।

টক শুধু দেহের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে না এটি শীতের সময়ও দেহের তাপমাত্রাকে ঘামের সাহায্যে বেরিয়ে যেতে সাহায্য করে। ভিটামিন ডি এর সূর্যের আলোয় গলে গিয়ে ভিটামিন ডি হয় আর যেটা সম্পূর্ণ হয় ত্বকে। মানবদেহের অঙ্গ সংস্থান হলো মানুষের পূর্ণাঙ্গ দেহ কাঠামো যা মাথা, ঘাড় এবং বক্ষ পেট পায়ের পাতা হাত-পা প্রতিটি দে মানব দেহের প্রতিটি অংশই বিভিন্ন কোষ দ্বারা গঠিত। একজন মানুষের পরিণত অবস্থায় সংখ্যা থাকে গড়ে প্রায় 37.2 ট্রিলিয়ন। তবে মানব দেহের অন্যতম সংখ্যাটিকে উপাত্ত হিসেবে এখন ধরা হয় এবং অন্যান্য হিসাব-নিকাশের সূচনা হিসেবেও ব্যবহৃত হয়।
এর ফলে অঙ্গের এবং শরীরে সকল কোষের সংখ্যাকে যোগ করে এই সংখ্যাটি নির্ণয় করা হয়েছে। মানব দেহে কিছু নির্দিষ্ট রাসায়নিক পদার্থের সমন্বয়ে গঠিত অন্যান্য হলো কার্বন ক্যালসিয়াম ফসফরাস মানব দেহের অধ্যায়ের শাখা হলো শরীর স্থান এবং সারির বিদ্যা সংস্থানিক ও রোগ নির্ণয় ভিত্তির বৈচিত্র অস্বাভাবিকভাবে দেখা যায় সনাক্ত করার প্রয়োজন পড়ে। মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি জানতে পেরেছেন।

মানবদেহের সবচেয়ে বড় পেশির নাম কি

শুরুতেই জেনেছেন মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি। এখন আপনাদের জানাবো মানবদেহের সবচেয়ে বড় পেশির নাম কি। বিজ্ঞানের ছাত্র-ছাত্রীদের মানবদেহের সবচেয়ে বড় পেশির নাম কি জানা আরও অতি জরুরী। পূর্ণবয়স্ক মানুষের দেহে মোট ২০৬টি হার থাকে। তাহলে আসুন মানবদেহের সবচেয়ে বড় পেশির নাম কি তা জেনে নিন।
  • মানুষের দুধ দাঁতের সংখ্যা ২০ টি।
  • মানবদেহের পরিপাকতন্ত্রের মধ্যে সবচেয়ে বড় অঙ্গটি হলো ক্ষুদ্রান্ত যার দৈর্ঘ্য প্রায় ৭ মিটার।
  • একজন মানুষের হাতে মোট ২৭ টি হাড় থাকে।
  • মানুষের দেহের সব ধরনের কোষ থাকে এর থেকে সবচেয়ে ক্ষুদ্র কোষ হল স্পার্ম সেল।
  • মানুষের পায়ের হাড় ২৬ টি।
  • মানুষের পাঁজরের হাড়ের সংখ্যা ২৪ টি।
  • পূর্ণ বয়স্ক একজন মানুষের হারের সংখ্যা ২০৬ টি হলেও শিশুদের মোট তিনশটি হার থাকে এবং বয়স বড় সাথে সাথে এটি কমতে শুরু করে।
  • মানুষের পেশিতে ৭২ টি বেশি থাকে।
  • মানুষের দেহের সবচেয়ে বড় গ্রন্থি হলো লিভার।
  • মানুষের দেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গটি হলো ত্বক।
  • মানুষের সবচেয়ে বড় কোষ হলো ডিম্বাণু।
  • মানবদেহের দীর্ঘতম কোষ হল স্নায়ু কোষ।
  • মানুষের সবচেয়ে বড় এবং শক্ত হাড় হল খিমার থিমার ফ্রিমার।
  • লোহিত রক্ত কণিকার গড়াই হল ১২০ দিন।
  • আমাদের স্নায়ু কোষ ৪০০ কিমি ঘন্টা বেগে চলে।
  • মানুষের জিনের নাম ডিএমডি এটি মানুষের।
  • শরীরের প্রায় ৬০ থেকে ৭০% পানি। 
  • আমাদের ত্বকে আমাদের প্রায় এক হাজার ভিন্ন প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করে।
  • মানুষের ভরের প্রায় ৮% রক্ত।
  • আমাদের কিডনি আমাদের প্রায় ৫০ গেলন রক্ত সঞ্চালন করে।
  • মানুষের মস্তিষ্কে প্রায় ১০০ বিলিয়ন নিউরন স্নায়ু কোষ রয়েছে।
  • মানুষের একটি সুস্থ ফুসফুস গোলাপি রঙের হয়।
  • আমাদের ত্বক আমাদেরকে এক হাজার প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করে।
  • মানুষের হাতের নখ থেকে পায়ের নখ দ্রুত বড় হয়।
  • একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষ প্রতিদিন গড়ে বিশ হাজার বার নিঃশ্বাস নেয়। 

মানবদেহের সবচেয়ে বড় গ্রন্থির নাম কি

মানবদেহের সবচেয়ে বড় গ্রন্থির নাম কি জানতে চাচ্ছেন। কেননা আর্টিকেলের এই অংশে মানবদেহের সবচেয়ে বড় গ্রন্থির নাম কি জানানো হবে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক মানবদেহের সবচেয়ে বড় গ্রন্থির নাম কি।

যকৃত মেরুদন্ড অন্যান্য কিছু প্রাণীদের অবস্থিত একটি অভ্যন্তরীণ অঙ্গ। মানব দেহের মধ্যে নিচে এবং উপরে পাকস্থলীর ডান পাশে এই যকৃৎঅবস্থিত। এটির রং লালচে খয়রি। এটি ক্যামেরা চলিত ভাষায় কলিজা বলে থাকি। যকৃত কেদেহের বৃহত্তম গ্রন্থি বলা হয়। এটি আমাদের দেহের মোট ওজনের ৩-৫%। যকৃত মূলত দুই ধরনের কোচ দিয়ে তৈরি। একটির নাম প্যারেনকাইমাল এবং আরেকটি হলো নন- প্যারেনকাইমাল। যকৃত প্যারেনকাইমাল দের কোষকে হেপাটাইটিস বলে যা আয়তনের ৮০%। ননপ্যারেনকাইমাল এর মধ্যে রয়েছে হেপাটিক স্টিলেট কোষ।

মানবদেহের সবচেয়ে ছোট অঙ্গের নাম কি

সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে আমাদের কোন কিছুরই জানার শেষ থাকে না। আমরা প্রতিদিনই নতুন নতুন কিছু না কিছু জেনে থাকি শিখে থাকি। চলুন আজকে আপনাদেরকে জানিয়ে দিই মানবদেহের সবচেয়ে ছোট অঙ্গের নাম কি। মানবদেহের সবচেয়ে ছোট অঙ্গের নাম কি আপনি নিজেও জেনে আর একজনকে জানাতে পারবেন। স্টেপিস এটি মানুষের মধ্য কর্ণে বিদ্যমান একটি অস্থির যেটি কম্পন বা শব্দ তরঙ্গ কে অন্তঃকর্ণে নিয়ে যেতে কাজ করে। এটি মধ্যবর্তী স্টইরাপ আকৃতিতে ছোট হাড় ওভার উইন্ডো নামে অঙ্গের কাছে শব্দ তরঙ্গ পাঠিয়ে শব্দ শুনতে সাহায্য করে। জেনে নিন মানবদেহের সবচেয়ে ছোট অঙ্গের নাম কি।
স্টিরাপ মানুষের দেহে সবচেয়ে ছোট এবং হালকা অস্থি যেটি দেখতে অশ্বরোহীর বা দানীয় মত। স্টেপিস ছোট অস্থির মধ্যে একটি এবং এটি মানুষের অস্থিগুলোর মধ্যে ক্ষুদ্রতম। এটি ওভার উইন্ডর ওপরে অবস্থিত এবং এর সাথে একটি অ্যানুলার লিগামেন্টের মাধ্যমে যুক্ত থাকে। এই উইন্ডোর ওপরে একটি মাথা থাকে যেটা ইনকাশ নামে পরিচিত এবং আরেকটি ছোট অস্থির সাথে সংযুক্ত থাকে।

মানবদেহের সবচেয়ে বড় অস্থির নাম কি

মানবদেহের সবচেয়ে বড় অস্থির নাম কি অনেকেরই জানার আগ্রহ থাকে। তাই আজকে আপনাদেরকে জানাবো মানবদেহের সবচেয়ে বড় অস্থির নাম কি। ফিমার হলো মানবদেহের সবচেয়ে বড় অস্থি। এটি মানুষের শরীরের বৃহত্তম এবং দীর্ঘতম এবং শক্তিশালী একটি অস্থি যা নিতম্ব থেকে সঞ্চালিত হয়। সীমার মানুষের হাটু থেকে নিতম্ব পর্যন্ত সঞ্চালিত হয় এবং এটি শরীরের ওপরে সমস্ত কিছু বহন করে।

মানুষের পায়ের অংশ হলো টিবিয়া, ফিমার, এবং কিপ যা প্যাটেলআ নামে পরিচিত। ফিমার মানুষের ভেতরের প্রান্তে একটি গোলাকার অভিক্ষিপ্ত অবস্থায় আছে যা ফিমারের মস্তক বলা হয়। এতে মানুষের শরীরের দীর্ঘতম এবং ভারী অস্থি। মানুষের শরীরের অঞ্চলে বক্ষ অস্থি চক্র অবস্থিত এরা পরস্পর থেকে আলাদাভাবে অবস্থান করে এবং এদের একজোড়া ক্লাবিকল এবং একজোড়া স্কাপপুলা থাকে। এই ক্লাবে কল মানুষের বাকা অস্থি। এই স্কাপপুলার যে অংশে হিউমেরাসের মস্তক সংলগড় থাকে তাকে গ্রিনেদ গব্বর বলে।

মানবদেহের সবচেয়ে বড় হাড়ের নাম কি

মানুষের শরীরের সবচেয়ে বড় এবং দীর্ঘতম অস্থির নাম হচ্ছে ফিমার। বাংলা একে উরুর অস্থি বলা হয় যা মানুষের চারটি হার দিয়ে গঠিত। এটি মানুষের দীর্ঘ এবং উরুর একটিমাত্র হাড়। মানুষের শরীরে ফিমার সবচেয়ে ভারী এবং শক্ত হাড়। এটি মানুষের উচ্চতার প্রায়২৬%। এতে মানুষকে হাটতে এবং দৌড়াতে সাহায্য করে থাকে এই হাড়। এই সীমারের অবস্থান মানুষের কোমরের শ্রেণী অস্থির একটি যুক্ত হয়ে নিতম্ব সন্ধি এবং দূরবর্তী অংশে পায়ের নিচে অবস্থিত টিবিয়া এবং প্যাটেলের সাথে যুক্ত হয়ে হাটু গঠন করে। আশা করি মানবদেহের সবচেয়ে বড় হাড়ের নাম কি জেনেছেন।

মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গের নাম

মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গের নাম হল হল
  • ত্বকঃ এটি মানুষের শরীরের বৃহত্তম অঙ্গ এবং বাইরের স্তর এর্পিডার্মিস যার নিচেই থাকে ডার্মিস। এটির কাজ হল মানুষকে দেহ রক্ষার প্রতিরক্ষা করা এবং শরীরে তাপমাত্রাকে নিয়ন্ত্রণ করা। এটি পানির মাত্রা ঠিক রাখে এবং ভিটামিন ডি সংশ্লেষণ করে। মানবদেহে বিভিন্ন অঙ্গের নাম জেনে নিন।
  • পাকস্থলীঃ এটি মানুষের হজমে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এবং এটি ছাড়া মানুষ বাঁচতে পারে না এবং এটি ছাড়া জীবন তত সহজ নয়। এটি মানুষের এনজাইম এবং সিক্রেট এসিডের মাধ্যমে খাদ্য ভাঙতে আমাদের সাহায্য করে। খাবারের সাথে প্রবেশকারী জীবাণুদেরও ধ্বংস করতে এটি সাহায্য ক...
  • অগ্নাশয়ঃ মানুষের মিশ্র গ্রন্থী এবং এটি থেকে মানুষের প্রয়োজনীয় হরমোন এর দেহের প্রতিরক্ষা ক্ষরণ করে থাকে।
  • কলিজাঃ এটি মানুষের অনেকগুলো কাজের জন্য একটি অঙ্গ এবং এটি মানুষের বৃহত্তম ডিটফ্রিফায়ার একটি ড্রাগের বিপাকীয়করণ ঘটায়। এটি আমাদের মেদ হজমে সহায়তা করে এবং রক্ত জমাট বাঁচতেও প্রোটনগুলি সাথে জড়িত থাকে।
  • ফুসফুসঃ মানুষের শরীরের বাতাস থেকে অক্সিজেন নিতে সাহায্য করে এই ফুসফুস এবং এটি দেহের কার্বন-ডাই-অক্সাইড থেকেও মুক্তি পেতে সাহায্য করে এবং অক্সিজেন গ্রহণ করে কার্বন-ডাই-অক্সাইড শরীর থেকে বের করে দেয়।
  • কিডনিঃ দেহের ক্ষতিকর রেচন পদার্থ থেকে মূত্র আকারে বের করে দিয়ে আমাদের রক্ত পরিষ্কার করে।
  • মস্তিষ্কঃ এটি আপনার শরীরের এবং আশেপাশের সবকিছু ব্যাখ্যা করে এবং গন্ধ, আলো শব্দ এবং ব্যথার মতো ইনপুট গুলিকে ব্যাখ্যা করে এবং স্মৃতিশক্তি ও সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা নিয়ন্ত্রণ করে মস্তিষ্ক। এটি মানুষের ১০০০০ কোটি স্নায়ু কোষ দ্বারা গঠিত মস্তিষ্ক এবং খুলির শক্ত আবরণের মধ্যে এর অবস্থান দিয়ে সব কাজ নিয়ন্ত্রণ করে এই মস্তিষ্ক।
  • ডিম্বাশয়ঃ এটি স্ত্রী দেহের গুরুত্বপূর্ণ অংশ ডিম্বাশয় এবং উদর গহবরের নিচের এবং জরায়ুর ওপরে দুইটি এবং দুইটি ডিম্বাশয় অবস্থান করে। স্ত্রী জনন কোষ ডিম্বাণু উৎপন্ন করে এই ডিম্বাশয়। এটি স্ত্রী হরমোন স্ত্রীর বিভিন্ন গৌণ, যৌন নিয়ন্ত্রণ করে থাকে।

শেষ কথাঃ মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি

মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি সম্পর্কিত যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয় সম্পর্কে ইতিমধ্যে ওপরে বিস্তারিত আলোচনা তুলে ধরা হয়েছে। মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি এর গুরুত্বপূর্ণ তথ্যবহুল এতক্ষণে জানতে পেরেছেন। আর্টিকেলটিতে মানবদেহের সবচেয়ে বড় গ্রন্থির নাম কি মানবদেহের সবচেয়ে বড় অস্থির নাম কি এবং মানবদেহের বিভিন্ন অঙ্গের নাম ইত্যাদি বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

আশা করি এই আর্টিকেলটি আপনাদের কাছে ভালো লেগেছে। ভালো লেগে থাকলে সকলের সাথে শেয়ার করবেন। আপনি যদি এই আর্টিকেলটি আপনার বন্ধু বান্ধবের সাথে শেয়ার করেন তাহলে তারা মানবদেহের সবচেয়ে বড় অঙ্গের নাম কি বিষয়গুলো জানতে পারবে। ২৩৭৭০
Next Post Previous Post
No Comment
Add Comment
comment url